ধূমপানকে না বলুন,সুন্দর পরিবেশ গড়ে তুলন

ধূমপান বিশ পান আমরা সকলই এই কথা জানি,কিন্ত আমরা কয় জন মানি।ধূমপান বিষ পান।কেউ বলে ধূমপান চিন্তা কমায়।কেউ বলে ধূমপান পেটের খিদা কমায়।আবার কেউ বলে,ধূমপান নাকি একটা ফ্যাশান।আসলে এই কথা গুলো একটা ও সঠিক না।অনেক ছেলেরা ধূমপান বন্ধুদের সাথে তাল মিলিয়ে টান দেয়,মজা করে।ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতি কর।

আবার অনেক বন্ধু বলে একটান দে কিছু হবে না,আরে বন্ধু একটান দুই টান এ কিচ্ছু হবে না।এই কথাটাই হলো নিশার প্রথম ধাপ,আমরা অনেকেই এটা বুজি না।

অনেক ছেলে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে,ধূমপান করে,এটা নাকি কষ্ট কমিয়ে দেয়।সত্যিকার অর্থে কটা একদম সঠিক না,বরং নিজের আরো ক্ষতি করা। ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতি কর

মেয়েরা ধূমপায়ী ছেলেদের পছন্দ করে?

অনেক মেয়ে ধূমপান ছেলে কে পছন্দ করে না।বা বিয়ে করতে রাজি হয় না,এর কারন হলো।

প্রথম কারণটি অবশ্যই তাদের নিজস্ব স্বাস্থ্য, ভবিষ্যতের বাচ্চাদের স্বাস্থ্য এবং ছেলেটির স্বাস্থ্য সম্পর্কে বিবেচনা করে তারা। আপনি জানেন যে, ধূমপান সাধারণভাবে ভাল কিছু হতে পারে না। হলুদ দাঁত, ভাঙা লিভার, ক্যান্সার এবং আরও অনেক কিছু হয়।ধূমপান ছেলে দের মুখ থেকে নোংরা গন্ধ আসে,অনেক মেয়ে এটা পছন্দ করেন না

ধূমপায়ীদের কেনো ঘৃনা করা হয়?

অবশ্যই, কোনও মেয়েই তার প্রেমিকের জন্য এটি চায় না। এবং 30 বছর বয়সের একজন ছেলের পক্ষে কেন পুরুষত্বহীন হয়ে উঠতে হবে? ধূমপায়ী এবং তার কর্মচারীদের স্বাস্থ্য এবং জীবনের জন্য অতিরিক্ত হুমকি। এটি অন্যতম প্রধান সিগারেটের অপ্রীতিকর গন্ধ সম্পর্কে চিন্তিত মেয়েদের স্বাস্থ্যের পরে দ্বিতীয় স্থানে। প্রথমত, কমপক্ষে, সবাই এটি পছন্দ করে না, এবং দ্বিতীয়ত, কিছু মেয়ে এবং কেবল নয়, কেবল নিকোটিনের গন্ধ সহ্য করে না।

ধূমপানকে না বলুন, সুন্দর পরিবেশ গড়ে তুলন।

ধূমপান ত্যাগ করার কিছু কৌশল।

১.প্রথমে ধূমপান ভালো না বলে, নিয়ত করতে হবে, আর খাবে না।

২.ধূমপান শরিরের জন্য ক্ষতিকর বার বার মনে করতে হবে।

৩.ধূমপান হারাম এটা মনে করতে হবে,কারন আল্লাহ তায়ালা হালাল জিনিস খাইতে বলছে।আর হারাম জিনিস ত্যাগ করতে বলছে।

ধূমপান শরীরের অনেক ক্ষতি করে,

সুতরাং ধূমপান একটি বাজে অব্যাস,সিগারেট এ বহন করে বিষাক্ত নিকেটন, এতে নেই খাদ্যমান আমিষ বা প্রোটিন। অনেকে সিগারেট এর দোয়া পেটে নিলে নাকি,পেটের খিদে কমে যায়,কথাটা আসলে একটা মিথ্যা কথা।সিগারেটের দোয়া একটা বাজে জিনিস,এটি পরিবেশ দূষণ করে, যারা সিগারেটের দোয়া নিঃশাষের সাথে নেয়,তাদের ক্যান্সার হয়ে থাকে।

নেশার টানে মস্তিষ্কের বিকৃতি ঘটানো মন্দকে বালো বলে,জীবনকে টকানো।বাস্তবতায় ধূমপান মানুষ কে ধ্বংসের দিকে টেনে নিয়ে যায়,এবং ধ্বংস করে। ধূমপান মানুষ কে ধ্বংস করে,কখন সুখময় করে তুলে না।

ধূমপান থেকে কিভাবে এড়িয়ে চলবো?

সমস্ত মতামত থাকা সত্ত্বেও, কোনও লোককে বেছে নেওয়ার সময় ধূমপানই মূল মানদণ্ড নয়। ধূমপান করা বা ধূমপান না করা প্রত্যেকের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত। তবে কেবল আপনার নয়, আপনার চারপাশের লোকজনের স্বাস্থ্যেরও যে ক্ষতি হয় তা ভুলে যাবেন না।

আমাদের একটাই জীবন নিজেকে ভালোবাসা, নেশা থেকে বিরক্ত থাকা ,। নেশা থেকে বিরক্ত থাকা, নিশা মুক্ত পরিবেশ গড়া,আগে নিজে নেশা থেকে সচেতন হবে,পরে নেশা ধূমপান ব্যাক্তিদের সচেতন করা।

এই রকম আরো অনেক কিছু জানতে আমাদের সাইটে থাকুন বাংলা ব্লগার ডট ইনফো। আশা করি অনেক ভালো লাগবে।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

3 × one =

Scroll to Top