সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি | ২০২২

আসসালামু আলাইকুম প্রিয় পাঠক বিন্দুরা, সবাই আশা করি ভালো আছো। আমি ও আলহামদুলিল্লাহ ভালো ভালো আছি। তোমরা নিশ্চয়ই অবগত আছো, এখন রমজান মাস। সারা বছরের বারো মাসের মধ্যে রমজান মাস টি উত্তম। রমজান মাসে রোজা রাখতে হয়। তাই রমজান মাসের সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি নিয়ে আজকের আর্টিকেল ।

রমজান মাস গুনা মাপের মাস। রমজান মাস বরকতের মাস। এই রমজান মাসে মুসলিম ভাই বোনেরা রোজা রাখে, আল্লাহর ইবাদত করে থাকে। সারা দিন পানহার থেকে রোজা রাখে। তাই প্রতিদিনি রোজাদার অনেক ব্যক্তি, ইফতারের সময়সূচি জানতে চায়। অধিকাংশ লোকজন গুগল বা ইউটুবে সার্য করে থাকে।

সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি

মুসলিম ভাই বোনেরা অবগত আছে যে, মুসলিম ধর্মাবলম্বীদের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ রমজান মাস। যা হিজরি বা আরবি সনের নবম মাস। এই মাসে জুড়ে মুসলমানরা সিয়াম সাধনার মাধ্যমে, মহান আল্লাহর শুকরিয়া পাওয়ার আশায় সিয়াম সাধনা করে থাকে। এই সিয়াম সাধনার অন্যতম দুটি গুরুত্বপূর্ণ সময় হলো ইফতার ও সেহরী।

তাই ইসলামিক ফাউন্ডেশনের অনুযায়ী সেহেরি ও ইফতারের সময়সূচি লিখলাম। একমাত্র রোজাদার মুসলিম ভাই বোনেরা বলতে পারবে। সেহেরি ও ইফতারের সময়টা কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

ইফতার ও সেহরির সময়সূচি ২০২২

সারা বিশ্বের মুসলিম ভাই বোনেদের জন্য রমজান মাস খুবই গুরুত্বপূর্ণ মাস। মহান আল্লাহ তায়ালা বলেন, আমার জন্য যারা রোজা রাখবে। আমি নিজ হাতে তাদেরকে পরুষকৃত করবো, সুবহানাল্লাহ।

তাহলে আর দেরি না করে, সেহেরি ও ইফতারের সময়সূচি জেনে নিন। আর আল্লাহর সন্তুষ্টির লাভের জন্য ৩০ টি রোজা রাখার চেষ্টা করুন।

রমজান মাসকে কয় ভাগে ভাগ করা হয়েছে?

ইবাদতের দিক বিবেচনায় এই মাসটিকে তিনভাগে ভাগ করা হয়েছে।

১. রহমতের ১০ দিন।

২. মাগফিরাতের ১০ দিন।

৩. নাজাতের ১০ দিন।

রমজানের প্রথম দশ দিনকে বলা হয় রহমতের দশ দিন। মাঝের দশ দিন হলো মাগফিরাতের দশ দিন। এমনকি শেষ দশ দিনকে নাযাতের দশ দিন বলে হয়।

মুসলমানদের জন্য পুরো রমজান মাসটি উত্তম মাস। তার মধ্যে শেষের এই দশদিন মুসলামানদের জন্য রয়েছে আরো একটি বিশেষ ইবাদত। যা ইতেকাফ বা এতেকাফ নামে পরিচিত।

শবে কদর কত তারিখে?

রমজানের শেষ দশ দিন বিজোড় রজনীতে থাকা পবিত্র রজনী শবে কদর খোঁজ করে থাকে। শব-ই-কদর বা লাইলাতুল কদর এটি আল্লাহর একটি নির্দেশনা যার প্রকৃত তারিখ সম্পর্কে মহান আল্লাহ ও তার প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (স) বলে দেননি। অধিকাংশ হাদিস অনুযায়ী রমজান এর শেষ দশ দিনের, বিজোড় রাত্রে যে কোনো একদিন।

তবে ২৭ রমজান বিজোড় রাত্রে শবে কদর হতে পারে বলে। মুসলিম ভাই বোনেরা আল্লাহর ইবাদত করতে থাকে।

রোজা কাকে বলে?

সুবহে সাদেক বা ভোরের সূক্ষ আলো থেকে শুরু করে সূর্যাস্ত পর্যন্ত। সকল প্রকার পানাহার, পাপাচার, এবং সেই সাথে যাবতীয় ভোগ-বিলাস থেকেও বিরত থাকার নাম রোযা। ইসলামের ৫ টি রুকনের মধ্যে তৃতীয় হচ্ছে সিয়াম বা রোজা।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন অনুযায়ী সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি

মূলত এই সময়সূচি করে থাকে, ঢাকা এবং ঢাকার আশে পাশে জেলা গুলোর জন্য। অনন্য বিভাগ এবং জেলার সময়সূচি, ঢাকার সময়সূচি অনুযায়ী কয়েক মিনিট বাড়বে অথবা কমবে। তাহলে জেনে নিন সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি ।

নিম্নে ইসলামিক ফাউন্ডেশন অনুযায়ী রমজানের সময়সূচি দেওয়া হলো।

ইফতার ও সেহেরির সময়সূচি

সেহরির ও ইফতারের সময়সূচি

রমজানের তারিখ বার বা দিনসেহরীর শেষ সময়ইফতারের সময়
৩ এপ্রিল রবিবার৪: ২৭ মিনিট৬: ১৯ মিনিট
৪ এপ্রিলসোমবার ৪: ২৬ মিনিট৬: ১৯ মিনিট
৫ এপ্রিলমঙ্গলবার৪ : ২৪ মিনিট৬: ২০ মিনিট
৬ এপ্রিলবুধবার৪: ২৪ মিনিট৬: ২০ মিনিট
৭ এপ্রিলবৃহসপ্রতিবার ৪: ২৩ মিনিট৬: ২১ মিনিট
৮ এপ্রিলশুক্রবার৪মিনিট৬ : ২১ মিনিট
৯ এপ্রিলশনিবার৪: ২১ মিনিট৬: ২১ মিনিট
১০ এপ্রিলরবিবার৪: ২০ মিনিট৬: ২ মিনিট
১১ এপ্রিলসোমবার৪: ১৯ মিনিট৬: ২২ মিনি
১২ এপ্রিলমঙ্গলবার৪: ১৮ মিনিট ৬: ২৩ মিনিট
১৩ এপ্রিলবুধবার ৪: ১৭ মিনিট ৬: ২৩ মিনিট
১৪ এপ্রিলবৃহসপ্রতিবার৪: ১৫ মিনিট ৬: ২৩ মিনিট
১৫ এপ্রিলশুক্রবার৪: ১৪ মিনিট৬: ২৪ মিনিট
১৬ এপ্রিলশনিবার ৪: ১৩ মিনিট৬: ২৪ মিনিট
১৭ এপ্রিলরবিবার ৪: ১২ মিনিট ৬: ২৪ মিনিট
১৮ এপ্রিলসোমবার৪: ১১ মিনিট ৬: ২৫ মিনিট
১৯ এপ্রিলমঙ্গলবার৪: ১০ মিনিট৬: ২৫ মিনিট
২০ এপ্রিলবুধবার ৪: ০৯ মিনিট ৬: ২৬ মিনিট
২১ এপ্রিলবৃহসপ্রতিবার৪: ০৮ মিনিট৬: ২৬ মিনিট
২২ এপ্রিলশুক্রবার৪: ০৭ মিনিট ৬: ২৭ মিনিট
২৩ এপ্রিলশনিবার৪: ০৬ মিনিট৬: ২৭ মিনিট
২৪ এপ্রিলরবিবার ৪: ০৫ মিনিট ৬: ২৮ মিনিট
২৫ এপ্রিলসোমবার ৪: ০৫ মিনিট৬: ২৮ মিনিট
২৬ এপ্রিলমঙ্গলবার৪: ০৪ মিনিট ৬: ২৯ মিনিট
২৭ এপ্রিলবুধবার ৪: ০৩ মিনিট৬: ২৯ মিনিট
২৮ এপ্রিলবৃহসপ্রতিবার৪: ০২ মিনিট৬: ২৯ মিনিট
২৯ এপ্রিলশুক্রবার ৪: ০১ মিনিট৬: ৩০ মিনিট
৩০ এপ্রিল শনিবার ৪: ০০ মিনিট৬: ৩০ মিনিট
০১ মেরবিবার ৩: ৫৯ মিনিট ৬: ৩১ মিনিট
০২ মেসোমবার ৩: ৫৮ মিনিট ৬: ৩১ মিনিট
এই সময়সূচি ঢাকা জেলার জন্য প্রযোজ্য

সব জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচী

ইসলামিক ফাউন্ডেশন অনুযায়ী, ঢাকার সময়সূচি থেকে যে সব জেলার যোগ করতে হবে। নিম্নে দেওয়া হলো।

ঢাকার সময়ের সাথে যোগ করতে হবে

ঢাকার সময়ের সাথে যে সব জেলার সেহরি ও ইফতারের সময় বিয়োগ করতে হবে। নিম্নে দেওয়া হলো।

ঢাকার সময় থেকে সেহরি ও ইফতারের সময় বিয়োগ করতে হবে,সেই সব জেলা।

নোয়াখালী জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি

আল্লাহ তায়ালা রোজাদার ব্যক্তিদের নিজ হাতে পুরষ্কার করবেন। নোয়াখালী জেলার সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি জানতে এখানে ক্লিক করুন।

নোয়াখালী জেলার ইফতার ও সেহেরির সময়সূচি

আরো পড়ুনঃ

তারাবির নামাজের নিয়ম | রোজার নিয়ত সমূহ দোয়া

শবে মেরাজের নামাজ পড়ার নিয়ম

শবে বরাতের নামাজের নিয়ম কানুন

জানাযার নামাজের নিয়ম।

আজকের সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি

৫ এপ্রিল, আজ সেহরির শেষ সময় ৪: ২ মিনিট

আজ ইফতারের সময় ৬: ২০ মিনিট

রোজা রাখার আরবিতে নিয়ত

نَوَيْتُ اَنْ اُصُوْمَ غَدًا مِّنْ شَهْرِ رَمْضَانَ الْمُبَارَكِ فَرْضَا لَكَ يَا اللهُ فَتَقَبَّل مِنِّى اِنَّكَ اَنْتَ السَّمِيْعُ الْعَلِيْم

রোজা রাখার নিয়ত বাংলা উচ্চারণ

বাংলা উচ্চারণঃ– নাওয়াইতু আন আছুমা গাদাম মিন শাহরি রমাজানাল মুবারাকি ফারদাল্লাকা, ইয়া আল্লাহু ফাতাকাব্বাল মিন্নি ইন্নিকা আংতাস সামিউল আলিম।

বাংলা অর্থঃ- হে আল্লাহ! আমি আগামীকাল তোমার পক্ষ থেকে পবিত্র রমজানের নির্ধারিত ফরজ রোজা রাখার ইচ্ছা পোষণ (নিয়ত) করলাম। অতএব তুমি আমার পক্ষ থেকে (আমার রোজা তথা পানাহার থেকে বিরত থাকাকে) কবুল কর, নিশ্চয়ই তুমি সর্বশ্রোতা ও সর্বজ্ঞানী।

ইফতারের দোয়া আরবিতে

اَللَّهُمَّ لَكَ صُمْتُ وَ عَلَى رِزْقِكَ وَ اَفْطَرْتُ

ইফতারের দোয়া বাংলা উচ্চারণ

 আল্লাহুম্মা লাকা সুমতু, ওয়া আ’লা রিযক্বিকা আফত্বারতু।

অর্থঃ- হে আল্লাহ! আমি তোমারই জন্যে রোজা রেখেছি এবং তোমারই দেওয়া রিজিক দ্বারা ইফতার করছি

সর্বশেষ কথা

সারাদিন উপাস থেকে ইফতার করলে রোজা হয় না। রোজা থাকার সাথে মিথ্যা বলা ছেড়ে দিতে হবে। খারাপ কাজ থেকে বিরক্ত থাকতে হবে। অন্য গীভত করা যাবে না। জুলম করা যাবে না।

যাই হোক আশা করি বুঝাতে পারলাম। সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি । আল্লাহ সকল মুসলিমদের রোজার রাখার তৌফিক দান করুক। আমিন



Leave a Comment

Your email address will not be published.

twenty − 11 =

Scroll to Top